Header Ads Widget

শিরোনাম

6/recent/ticker-posts

ঝামেলা ছাড়াই বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম জেনে নিন | bKash Agent Registration

বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম তথা bKash Agent Registration কি তা অনেকেই বুঝতে পারেনা। তাই আমার আজকের এই পোস্ট। আমার এই পোষ্টের মাধ্যমে আমি দেখাবো কিভাবে বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খুলতে হয়। তাহলে মনোযোগ দিয়ে আমার এ পোস্টটি পড়ে ফেলুন। বর্তমান সময়ের জন্য বিকাশ অনেক জনপ্রিয় একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। এই বিকাশ দিয়ে আমরা টাকা লেনদেন করে থাকি। অনেকে ব্যক্তিগত প্রয়োজনে বিকাশ ব্যবহার করে। আবার অনেকে বিকাশের ব্যবসা করে। যারা ব্যক্তিগত প্রয়োজনে বিকাশ ব্যবহার করে তাদের একটি বিকাশ পার্সোনাল একাউন্ট প্রয়োজন হয়।

bkash agent registration

আবার যারা বিকাশ দিয়ে ব্যবসা করতে চান তাদের জন্য বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট (bkash agent) খুলতে হয়। কারন বিকাশ পার্সোনাল একাউন্ট দিয়ে ব্যবসা করা যায় না। তাই কেউ যদি মনে করেন যে বিকাশের ব্যবসা করবেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই বিকাশ এজেন্ট (bkash agent) করে নিতে হবে। অনেকেই হয়তো পার্সোনাল বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম জানেন। কিন্তু বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম অনেকেই জানেন না। আর আপনি যদি বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট (bkash agent account) করার কথা ভেবে থাকেন তাহলে পোস্টটি আপনার অনেক উপকারে আসবে। কারন এই পোস্ট পড়ার পর আপনি জানতে পারবেন কিভাবে বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খুলতে হয়। এছাড়াও এই পোস্টে আমি বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়মসহ এটির সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আলোচনা করব।

বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট কার জন্য - bKash Agent

প্রথমে আমরা জেনে নিব কোন ব্যক্তি বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট করতে পারবেন? এটা কিন্তু জরুরি একটি প্রশ্ন। সবাই কিন্তু বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট করতে পারবেন না। বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট করার নিয়ম আছে শুধুমাত্র তাদের জন্য যারা বিকাশের ব্যবসা করতে চান বা চলমান ব্যবসার পাশাপাশি বিকাশ দিয়ে ব্যবসা করতে চান। অর্থাৎ আপনি যদি bKash agent মানে বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট করতে চান তাহলে আপনার চলমান কোন ব্যবসা বা নতুন কোন ব্যবসা থাকতে হবে।

বিকাশ ব্যবসায়ে মূলধন

অনেকের মনে প্লশ্ন জাগতে পারে যে, বিকাশ ব্যবসায় কত টাকা পুঁজি প্রয়োজন। এটা আপনার উপর নির্ভর করবে। তবে আপনি চাইল ৫০,০০০ বা ১ লক্ষ টাকা দিয়ে শুরু করতে পারেন। তবে আপনি যত বেশি লেনদেন করবেন তত বেশি আপনার প্রফিট হবে। তাই আপনার ব্যবসার অবস্থান এবং চাহিদার উপর ভিত্তি করে আপনি পুঁজি দিতে পারেন।

বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম - bKash Agent Registration

সাধারণত বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার দুইটি নিয়ম রয়েছে। এগুলো হলো -

১. অনলাইনে
২. বিকাশ ডিস্ট্রিবিউটর অফিস থেকে

বিকাশ দিয়ে যেকোন বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম

অনলাইনে বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনি যদি অনলাইনে আবেদন করতে চান তাহলে বিকাশ এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খুলতে পারবেন। এরজন্য আপনাকে প্রথমে এই অফিসিয়াল লিংকে যেতে হবে। এরপর আপনি একটি আবেদন ফর্ম পাবেন। এই ফর্মে সকল তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করে নিন। মাথায় রাখতে হবে, এখানে কোন ধরনের মিথ্যা তথ্য দেওয়া যাবে না। এখানে আমি নিচে ধাপে ধাপে সব বলে দিচ্ছি কোনটাতে কি দিতে হবে।

১. প্রথম ঘরে, যিনি এজেন্ট হতে চান তার প্রকৃত নাম।
২. দ্বিতীয় ঘরে, আপনাকে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার টি দিতে হবে।
৩. তৃতীয় ঘরে, আপনাকে আপনার ব্যবসার ট্রেড লাইসেন্স নাম্বারটি দিতে হবে।
৪. চতুর্থ ঘরে, আপনার যোগাযোগের জন্য একটি নাম্বার দিতে হবে।
৫. পঞ্চম ঘরে, আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম দিতে হবে।
৬. ষষ্ঠ ঘরে, আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা দিতে হবে।
৭. সপ্তম ঘরে, আপনাকে একটি ভ্যালিড ইমেইল আইডি দিতে হবে।
৮. সবার শেষের ঘরে, আপনাকে ক্যাপচাটি(দুইটি সংখ্যার যোগফল) পূরণ করে দিতে হবে।

এবার নিচে "জমা দিন" বাটনে ক্লিক করুন। তাহলে সাথে সাথে আপনার আবেদন ফরমটি সাবমিট হয়ে যাবে। ফর্মটা সাবমিট হওয়ার পর বিকাশ প্রতিনিধি আপনার সবকিছু যাচাই করবে। সব ঠিক থাকলে আপনার বিকাশ আবেদনটি একটিভ হয়ে যাবে। এটাই হলো অনলাইনে আবেদনের প্রক্রিয়া।

বিকাশ ডিস্ট্রিবিউটর অফিস থেকে

বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার আরেকটি উপায় হলো ডিসট্রিবিউশন অফিস। আপনি যদি অনলাইনে আবেদন করতে না চান তাহলে আপনি আপনার পার্শ্ববর্তী বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিস থেকে বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খুলে নিতে পারবেন। আপনি যদি আপনার পার্শ্ববর্তী বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিসের লোকেশন না জানেন তাহলে 16247 ডায়াল করে জেনে নিতে পারবেন। তারপর দিস্ট্রিবিউশন অফিসে গিয়ে আপনি আপনার বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খুলে নিতে পারবেন। আপনি যদি বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিস থেকে বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খুলতে চান তাহলে আপনাকে কিছু কাগজপত্র সাথে করে নিয়ে যেতে হবে। যেমন আপনার ছবি, আপনার ভোটার আইডি কার্ড ইত্যাদি।

টিপস: আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কি যদি জনসমাগম হয় এমন জায়গায় হয়ে থাকে তাহলে আপনার আবেদনটি খুব সহজেই অনুমোদন হয়ে যাবে এবং আপনার ব্যবসায় লাভ বেশি হবে। তাই সব সময় মাথায় রাখবেন আপনার ব্যবসাটি যাতে এমন জায়গায় হয় যেখানে অনেক মানুষ থাকে বা বিকাশের অনেক চাহিদা রয়েছে।

পোস্টটি এটটুকুতে শেষ করলাম। এটাই হলো বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম। আপনার যদি পোস্টটি ভালো লাগে তাহলে সবার সাথে শেয়ার করবেন। আর যদি কোন কিছু জানার থাকে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ